ডেলমিক্রন কি করোনার আরও শক্তিশালী ধরন

সম্প্রতি ইউরোপের দেশগুলোতে করোনার অমিক্রন ধরনে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকায় বিশ্বজুড়ে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। বিশ্বের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা করোনার নতুন এ ধরনের গতিপ্রকৃতি সম্পর্কে এখনো পুরোপুরি নিশ্চিত হতে পারেননি। অমিক্রন ধরনের বৈশিষ্ট্য জানতে এবং এর বিস্তার ঠেকাতে গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন তাঁরা। এর মধ্যেই করোনাভাইরাসের আরও একটি ধরনের কথা সামনে এসেছে। এর নাম ডেলমিক্রন। বিশেষজ্ঞদের ধারণা, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপজুড়ে নতুন করে যে কোভিড সুনামি শুরু হয়েছে, তার নেপথ্যে রয়েছে ডেলমিক্রন।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে বলা হয়, ডেলমিক্রন করোনাভাইরাসের আলফা, বিটা কিংবা অন্য ধরনগুলোর মতো একেবারে নতুন কোনো ধরন নয়। মূলত করোনাভাইরাসের বিদ্যমান দুটি ধরন ডেলটা ও অমিক্রনেরই সমন্বিত রূপ এটি। চলতি বছরের এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি থেকে জুনের মাঝামাঝি পর্যন্ত করোনার ডেলটা ধরনের আধিপত্য দেখা গেছে। বিশ্বজুড়ে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের জন্য এ ধরনই দায়ী বলে মনে করা হয়। করোনাভাইরাসের এ ধরনে আক্রান্ত হলে মারাত্মক উপসর্গ দেখা দেয়। আক্রান্ত ব্যক্তিদের হাসপাতালে ভর্তির ঝুঁকিও অনেক বেশি। সুস্থ হওয়ার পরও অনেকের স্মৃতিভ্রম, পেশিতে ব্যথা ও চুল পড়ে যাওয়ার মতো দীর্ঘমেয়াদি জটিলতা দেখা দিতে পারে।

আর অমিক্রন ধরন নিয়ে ধারণা করা হচ্ছে, এর উপসর্গ মৃদু। এর সংক্রমণক্ষমতা অনেক বেশি হলেও মারাত্মক কোনো উপসর্গ দেখা দেয় না এবং হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার প্রয়োজন কম হয়। তবে বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, বিদ্যমান টিকা নিয়ে এবং প্রাকৃতিকভাবে অর্জিত রোগ প্রতিরোধক্ষমতা দিয়ে অমিক্রন ধরনকে ঠেকানো যায় না। অমিক্রনের প্রাথমিক লক্ষণ হলো গলাব্যথা, মাথাব্যথা ও ক্লান্তিবোধ। তবে অমিক্রনে আক্রান্ত ব্যক্তিদের স্বাদ ও গন্ধ না পাওয়ার ঘটনা এখন পর্যন্ত দেখা যায়নি।

ডেলটা ও অমিক্রন ধরনের সমন্বিত রূপ ডেলমিক্রনকে উচ্চ সংক্রমণক্ষমতার ধরন বলে মনে করা হচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, এর উপসর্গও মারাত্মক। তবে ডেলমিক্রন সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে আরও অনেক গবেষণার প্রয়োজন রয়েছে।